• Uncategorized

    উল্লাপাড়ায় মৎস্য বিভাগের অভিযানে বিভিন্ন জাল ও বাঁশের বানা ধ্বংস

      প্রতিনিধি ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০ , ৫:১১:০৩ প্রিন্ট সংস্করণ

     

     

    মোঃ শাহাদত হোসেন- সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:

    সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় মৎস্য বিভাগ থেকে অভিযান চালিয়ে আটক অবৈধ বিভিন্ন জাল এবং উন্মুক্ত জলাশয় থেকে বাঁশের বানা উচ্ছেদ ও ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল দশটায় পৌর শহরের শ্যামলীপাড়ায় জাল ব্যবসায়ী তুলসী বর্মনের দোকান ও গোডাউনে মৎস্য বিভাগ থেকে অভিযান চালিয়ে বিক্রয় নিষিদ্ধ প্রায় ১ হাজার ৫শ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল আটক করা হয়। এ জালের আনুমানিক মূল্য প্রায় ২০ হাজার টাকা। উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার মোঃ বায়েজিদ আলম এ অভিযান চালান। এ সময় জাল ব্যবসায়ী তুলসী বর্মন পালিয়ে যান। পরে আটককৃত জাল আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস করে দেয়া হয়। এদিকে গতকাল বৃস্পতিবার উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার মোঃ বায়েজিদ আলম দিনভর বাঙ্গালা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় বন্যার পানিতে প্লাবন ভুমি থেকে কারেন্ট জাল, বাদাই জাল ও বাঁশের বানা উচ্ছেদ করে দেন। বনমালী প্রতাপ বিনায়েকপুর এলাকায় মৎস্য বিভাগ থেকে এ অভিযান চালানো হয়। অভিযান শেষে আটক জাল ও বাঁশের বানা ধ্বংস করে দেয়া হয়। উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার মোঃ বায়েজিদ আলম জানান, বিক্রয় নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল এবং উন্মুক্ত জলাশয়ে বাঁশের বানার বেড়াসহ সব ধরনের জাল আটক ও ধ্বংসের অভিযান অব্যহত থাকবে।

    আরও খবর

                       

    জনপ্রিয় সংবাদ

    পার্বত্য কাব্য”র কেন্দ্রীয় কমিটির দায়িত্বে কাছেন, রেজাউল ও সুব্রতসহ এক ঝাক প্রতিভাবান কবি

    পটুয়াখালীতে দিন ব্যাপী সিসা দূষণ প্রতিরোধে স্থানীয় সাংবাদিকদের নিয়ে কর্মশালা অনুষ্ঠিত

    পটুয়াখালীর লোহালীয়া নদীতে ব্রীজের নির্মান কাজ বর্ধিত সময় সম্পন্ন করার তাগিদ। মু,হেলাল আহম্মেদ(রিপন) পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধিঃ  পটুয়াখালী জেলার লোহালীয়া নদীর উপর নির্মানাধীন ব্রীজের ১৪টি স্প্যান বিশিস্ট ৫৭৬.২৫ মিটার দীর্ঘ পিসি গার্ডার ব্রীজের অসমাপ্ত নির্মান কাজ বর্ধিত সময় ২০২১ সনের জুন মাসের মধ্যে সম্পন্ন করার জন্য সংশ্লিস্ট ঠিকাদারকে তাগিদ দিলেন  ২৩ আগস্ট রবিবার সকালে ব্রীজ পরিদর্শনে আসা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সচিব ও পরিকল্পনা কমিশনের কৃষি, পানি সম্পদ ও পল্লী প্রতিষ্ঠানের সদস্য মোঃ জাকির হোসেন আকন্দ।  এ সময় সচিব জাকির হোসেন আকন্দ উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, মহামারি করেনা ও দুর্যোগপুর্ন আবহাওয়ার কারনে ব্রীজ নির্মানের  নির্ধারিত সময় ডিসেম্বর মাসে কাজ সম্পন্ন করার সময় বেধে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু করেনা ও ঝড়, বৃষ্টির কারনে ব্রীজের কাজ ব্যহত হয়। এ কারনে ব্রীজ নির্মানের কাজ সম্পন্ন করার জন্য ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স নবারুন ট্রেডার্স এন্ড আবুল কালাম আজাদ (JV) কে বলা হয়েছে।  এ সময় অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন পৌরসভার মেয়র মহিউদ্দিন আহমেদ, প্রকল্প পরিচালক মোল্লা মিজানুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (আইসিটি ও শিক্ষা) জি এম সরফরাজ, এলজিইডি পটুয়াখালীর নিরবাহী প্রকৌশলী মোঃ আবদুস সত্তার, সিনিয়ার সহকারী প্রকৌশলী যুগল কৃষ্ণ মন্ডল, উপ সহকারী প্রকৌশলী মোঃ কামাল হোসেন, উপ সহকারী প্রকৌশলী  মোঃ মইনুল ইসলাম প্রমুখ। এর আগে সচিব মোঃ জাকির হোসেন আকন্দ মুজিব জন্ম শত বর্ষ উপলক্ষে এলজিইডি কার্যালয়ের সামনে বকুল ফুল গাছের চারা রোওন করেন।  প্রকাশ উক্ত ব্রীজটি নির্মানে প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৩ কোটি টাকা, চুক্তি মূল্য ৪৭.১৯ কোটি টাকা। এ ব্রীজটি নির্মান হলে জেলার বাউফল, দশমিনা, গলাচিপা ও ভোলা জেলার সাথে যেগাযোগে সহজ হবে এবং অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবে হাজার হাজার মানুষ।এমনটাই আশা করছেন স্থানীয় জনসাধারণ।

    বাঁধ ভেঙ্গে হাজারো লোক ঘর ছাড়া নওগাঁয় নদ-নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত

    ভারতের আসামে রাষ্ট্রীয় কবি সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন কবি আককাস আলী

    পিপিআর রোগ নির্মুল ও ক্ষুরারোগ নিয়ন্ত্রণ প্রকল্পের কমিটি গঠন